অদৃশ্য ইশারায় কাজ বন্ধের নির্দেশ,বড় অংকের ক্ষতির মুখে পরিবহণ ঠিকাদার

লেখক: নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: ৩ মাস আগে

ঠাকুরগাঁওয়ে বীজ উৎপাদন কেন্দ্রে পরিবহণ ঠিকাদার নিয়োগ নিয়ে ধুম্রজাল তৈরী হয়েছে। এক বার, দুই বার নয়, তৃতীয় বারের মতো দরপত্র আহ্বান ও উন্মুক্ত করা হয়েছে। এতে সবচেয়ে নিম্ন দর দিয়ে কাজের ওয়ার্ক অর্ডার পেয়ে নির্রিধাত কাজ শুরু করলেও অদৃশ্য ইশারা মৌখিক নির্দেশে তা আবার বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিএডিসি-ঠাকুরগাঁও এর বীজ উৎপাদন কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে।

নিম্ন দরে কাজ পাওয়া ঠিকাদারের অভিযোগ, গত দু’বারের পরিবহন কাজ পাওয়া ঠিকাদার গোপন যোগসাজসে নিজে কাজ পেতে বার বার প্রধান কার্যালয়ে যোগাযোগ করে এধরণের অপচেষ্টা চালাচ্ছে-এতে সময় মতো সার-বীজ না পেয়ে ক্ষতির মুখে পড়ছে সারা দেশের প্রান্তিক চাষীরা।

এর আগে কাগজে ত্রুটি থাকায় ও ২য় বার দুই দরদাতার দর একই হওয়ার অজুুহাতে পূণ:দরপত্র আহ্বান করে বিএডিসি’র উপপরিচালক (বীউ) ঠাকুরগাঁও কার্যালয়। পূণঃদরপত্র আহ্বানের দরপত্র দাখিলের দিন ছিলো ৯ নভেম্বর। এদিন দুপুর ১২টা পর্যন্ত জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, উপপরিচালক (বীপ্র),বীপ্রকে, বিএডিসি, ঠাকুরগাঁও ও উপপরিচালক (বীউ), বীউকে, বিএডিসি, শিবগঞ্জ, ঠাকুরগাঁও কার্যালয়ে ঠিকাদারদের দরপত্র গ্রহন করা হয়।

দরপত্র গ্রহন শেষে দরপত্র উন্মুক্ত কমিটি বিকেল ৩টায় দরপত্র বক্স উন্মুক্ত করার কথা থাকলেও বিকেল সাড়ে চারটায় তা শুরু হয়।৩জন ঠিকাদার, দরপত্র উন্মুক্ত কমিটি ও সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে দরপত্র বক্স উন্মুক্ত করা কালে দেখা যায় ডিসি অফিসের বক্স ফাঁকা, উপপরিচালক (বীপ্র),বীপ্রকে, বিএডিসি, ঠাকুরগাঁও কার্যালয়ে জমা পড়ে একটি দরপত্র ও উপপরিচালক (বীউ), বীউকে, বিএডিসি, শিবগঞ্জ, ঠাকুরগাঁও কার্যালয়ে জমা পড়ে ৩টি দরপত্র।

দরপত্রে সর্বনিম্ন দর দেন মেসার্স আর আর বি ট্রেডার্স। তিনি দর দেন ৬৬ লক্ষ পনেরো হাজার টাকা। এছাড়া মেসার্স এসএম এ কুদ্দুস দর দেন ৯২ লক্ষ ১৯ হাজার টাকা, মেসার্স এসএম কন্সট্রাকশন দর দেন ৯২ লক্ষ ৪৩ হাজার টাকা এবং মেসার্স মাহাবুব এন্টার প্রাইজ দর দেন ৯৪ লক্ষ ৬৮ হাজার সাত শত টাকা।

নিয়ম অনুসারে সর্বনিম্ন দরদাতা কাজ পাওয়ার কথা। সে হিসেবে মেসার্স আর আর বি ট্রেডার্স কাজ পাওয়ার কথা। কিন্তু কমিটি তাৎক্ষণিক দরপত্র মূল্যায়ন না করে পরবর্তীতে জানাবেন বলে বলেন। পরবর্তীতে গত ১০নভেম্বর কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক সর্বনিম্ন দরদাতা মেসার্স আর আর বি ট্রেডার্সকে কার্যাদেশ দেওয়া হয়।

মেসার্স আর আর বি ট্রেডার্স এর স্বত্বাধিকারী নাজমুল হাসান রাসেল অভিযোগ করে বলেন,কিছু বীজ টানার পর হঠাৎ রবিবার (১৩) নভেম্বর উপপরিচালক, বীজ উৎপাদন, শিবগঞ্জ তাজুল ইসলাম ভূঞা মৌখিক ভাবে কাজ স্থগিত রাখতে বলেন। রাসেল অভিযোগ করে বলেন,এমনিতেই তিনবার অংশ গ্রহণ করে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। অপরদিকে কতিপয় অসাধু ঠিকাদারকে (পছন্দের) কাজ পাইয়ে দিতে বারবার দরপত্র আহ্বান করা হচ্ছে। আমাদের লেবার গাড়ি ভাড়া বসিয়ে রেখে পেমেন্ট করতে হচ্ছে।

রাসেল আরও বলেন,সময়মতো বীজ সরবরাহ না করলে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।

এ ব্যাপারে উপপরিচালক, বীজ উৎপাদন, শিবগঞ্জ তাজুল ইসলাম ভূঞা বলেন, তৃতীয় বারের মতো আমি দরপত্র আহ্বান করেছি। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। এতে আমরাও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি, ঠিকাদারও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। কিন্তু কিছু করার নেই হেড অফিসের মৌখিক নির্দেশে কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে। পছন্দের কাউকে কাজ পাইয়ে দিতে এমন করা হচ্ছে কি না জানতে চাইলে এর সদূত্তর দিতে পারেননি তিনি।

বিডি/ডেস্ক