আত্মহত্যার জন্য বিষ কিনতে গিয়ে দোকানীর সাথে প্রেম, অতপর….

লেখক: পটুয়াখালি থেকে...
প্রকাশ: ৯ মাস আগে

বিয়ের দাবিতে পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে ৬ দিন ধরে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করছেন এক সন্তানের জননী। সীমা আক্তার নামে ওই নারী সোমবার (২ মে) থেকে বিয়ের দাবিতে সুবিদখালী বাজারের আলী বাংলা চাইনিজসংলগ্ন মো. রায়হানের বাসায় অনশনে বসেছেন।

মো. রায়হান সুবিদখালী বাজারের সার ও কীটনাশক বিক্রেতা ও উপজেলার আমড়াগাছিয়া ইউনিয়নের ছৈলাবুনিয়া গ্রামের মতি মৃধার ছেলে।

আর সীমা আক্তার (২০) একই উপজেলার মির্জাগঞ্জ ইউনিয়নের মানসুরাবাদ গ্রামের জব্বার জোমাদ্দারের মেয়ে।

সীমা আক্তার জানান, সাড়ে চার বছর আগে দক্ষিণ কলাগাছিয়া গ্রামের মধু চাপরাসীর ছেলে শহীদুল্লাহর সঙ্গে তার বিয়ে হয় এবং তিন বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে তার। দাম্পত্যে কলহের কারণে আত্মহত্যার জন্য রায়হানের কীটনাশকের দোকান থেকে বিষ কিনতে যাই। এ সময় রায়হান তাকে বাধা দিলে তাদের মধ্যে সহমর্মিতা ও সহানুভূতির সৃষ্টি হয়। ধীরে ধীরে এটি প্রেমের সম্পর্কের পরিণতি হয়।

প্রেমের সম্পর্ক চলাকালে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বহুবার শারীরিক সম্পর্কে জড়ান। ইতিমধ্যে রায়হান কৌশলে আগের স্বামীকে তালাক দিতে বাধ্য করান।

সীমা আক্তার আরও বলেন, বিয়ের কথা জানালে রায়হান বিয়ে করতে অস্বীকার করেন। তাই আমি বিয়ের দাবিতে রায়হানের বাড়িতে ছয় দিন ধরে অনশন করছি।

এদিকে রায়হান বাসায় না থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয় মির্জাগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন তালুকদার জানান, এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিডি/ডেস্ক