এলাকার খাল-খন্দ ভরতে ভাটা থেকে ফ্রি রাবিশ এনে নিজের কাজ সারলেন জনপ্রতিনিধি

লেখক: নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: ৫ মাস আগে

বর্ষা মৌসুমে জনসাধারণের চলাচলের রাস্তায় পানি জমে থাকায় সেই খাল-খন্দ ভরাটের কথা বলে স্থানীয় একটি ইট ভাটা (JSM) থেকে এক ট্রাক্টর রাবিশ নিয়ে নিজের ঘরের কাজের জন্য ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ২১ নং ঢোলারহাট ইউনিয়নের ৭,৮ এবং ৯ নং ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য মানসি রানীর বিরুদ্ধে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ঐ এলাকার প্রায় রাস্তা গুলো বর্ষা মৌসুমে খানা খন্দকের সৃষ্টি হয়েছে, এতে করে জনসাধারণের চলাচলে ভোগান্তি বেড়ে যায়। কিন্তু এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে স্থানীয় মহিলা সদস্য মানসি রানী একটি ইট ভাটার কাছে ফ্রিতে এক ট্রাক্টর রাবিশ নিয়ে রাস্তায় না দিয়ে নিজের ঘরের কাজে ব্যবহার করছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যক্তি বলেন, ইট ভাটা থেকে রাবিশ নিয়ে আসলো জনসাধারণের নাম ভাঙ্গিয়ে রাস্তার খানা-খন্দক ভরাট করবে বলে, আর সেই রাবিশ নিজের ঘরের কাজে লাগালো, এই যদি হয় জনপ্রতিনিধির নমুনা তাহলে সাধারণ মানুষের কি হবে।

এ বিষয় মহিলা সদস্য মানসি রানীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ভাটা থেকে রাবিশ নিয়ে এসেছি আমার কথা বলে, এই রাবিশ আমি কি করব না করব সেইটা আমার ব্যাপার।আপনাদের তো মাথা ব্যাথার কিছু নেই।

এ বিষয়ে জেএসএম ইট ভাটার ম্যানেজার আব্দুল আজিজের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওয়ার্ড মেম্বার মানসি রানী আমার কাছে দুই ট্রাক্টর রাবিশ চায় জনগণের স্বার্থে। তিনি বলেন বর্ষার কারণে রাস্তা গুলো খানা খন্দকে পরিনত হয়েছে তারজন্য আমাকে দুই গাড়ি রাবিশ দেন। তখন আমি এক গাড়ি রাবিশ দিয়েছি। কিন্তু বেশ কিছু দিন পার হলেও দেখা যায় তিনি রাস্তার খানা খন্দকে কোন রাবিশ দেননি তারপর আমি নিজে সেই সব স্থানে রাবিশ ফেলি। এমন যদি হয় ইউপি সদস্যের চরিত্র তাহলে কিভাবে অন্য কোন ইউপি সদস্যকে বিশ্বাস করবো।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান অখিল চন্দ্র রায় বলেন, এ বিষয় আমি কিছু জানি না, জেনে পরবর্তীতে আপনাদের জানাবো।

ঘটনা অবহিত করলে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু তাহের মোঃ সামসুজ্জামান বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই, তবে অভিযোগ পেলে প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিডি/আকাশ