ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি হলেন আওয়ামীলীগ নেতার ছেলে !

লেখক: বাংলা২৪ ভয়েস ডেস্ক
প্রকাশ: ১০ মাস আগে

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির নতুন সভাপতি হয়েছেন আওয়ামীলীগ নেতার ছেলে-বিষয়টি নিয়ে সারাদেশে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

নবনির্বাচিত ছাত্রদল সভাপতি কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবণ বলেছেন, রাজনৈতিক আদর্শের কারণে ১০ বছর তিনি পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন। তাঁর পরিবারের সবাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। রাজনৈতিক আদর্শের কারণে পরিবারের কেউ তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ রাখেন না। তাঁরা হয়তো ভাবেন, যোগাযোগ রাখলে রাজনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।

ছাত্রদলের নবগঠিত কমিটি কমিটির সভাপতি হওয়ার পর আজ সোমবার রাতে গণমাধ্যমকে তিনি এ কথা বলেন।

কাজী রওনাকুল শ্রাবণ বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর ছাত্রদলের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। তারপর থেকে পরিবারের সঙ্গে তাঁর মনোমালিন্য হয়। আওয়ামী লীগ পরিবারে সন্তান হয়েও বিএনপি রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হওয়ার বিষয়টি পরিবার ভালোভাবে নেয়নি। এক পর্যায়ে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। মা ছাড়া পরিবারের কারো সঙ্গে কথা হয় না। তিনিও যোগযোগ রাখেন না।

ছাত্রদল নেতা হতে পেরে গর্ববোধ করে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমার পরিবার যেহেতু আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত, তাই তাঁদের চরিত্রও আওয়ামী লীগের বাইরে হবে না। তাঁরা আমাকে অস্বীকার করবে- এটাই স্বাভাবিক। সংগঠনের কারণে পরিবার বিসর্জন দিতে হয়েছে। দলও আমাকে মূল্যায়ন করেছে।

শ্রাবণ বলেন, সভাপতি হওয়ার পর টেলিফোনে খবরটি তাঁর মাকে জানিয়েছেন। মায়ের মাধ্যমে পরিবারের অন্যরা জেনেছেন।

ছাত্রদল সভাপতি বলেন, নতুন নেতৃত্বের সামনে মূল চ্যালেঞ্জই হচ্ছে কেন্দ্রীয় কমিটিকে পূর্ণাঙ্গ করা, দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনকে তরান্বিত করা।

আগামী তিন মাসের মধ্যে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, ঢাকা শহরের প্রতিটি ওয়ার্ড, থানা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কমিটি করে সংগঠনের সবাইকে সাংগঠনিক পরিচয় দেওয়ার কাজকে তিনি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছেন। পাশাপাশি ক্যাম্পাস ভিত্তিক ছাত্ররাজনীতি গতিশীল করবেন।

প্রসঙ্গত, শ্রাবণের বাড়ি যশোরের কেশবপুরে। তার বাবা কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী রফিকুল ইসলাম। রফিকুল ইসলামের বড় ছেলে কাজী মুস্তাফিজুর রহমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক। মেজো ছেলে কাজী মুজাহিদুল ইসলাম পান্না উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক। সেজো ছেলে কাজী আজাহারুল ইসলাম মানিক উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক।

ডেস্ক/বিডি