ঠাকুরগাঁওয়ে নারী ঘটিত বিষয়ে গণধোলাইয়ের শিকার ছাত্রলীগ নেতার ভিডিও ভাইরাল

লেখক: নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: ৩ মাস আগে

ঠাকুরগাঁওয়ের রুহিয়া থানা এলাকায় নারী কেলেঙ্কারীর ঘটনাকে কেন্দ্র করে জুয়েল মাহমুদ নামে এক ছাত্রলীগ নেতাকে গণধোলাই দিচ্ছে গ্রামবাসী -এমন ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে । তবে ঘটনাটি অস্বীকার করেছে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা জুয়েল মাহমুদ। জানা যায়, জুয়েল মাহমুদ রুহিয়া-১ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক এবং ঘটনাটি ২০১৯ সালের।

ভাইরাল ওই ভিডিওতে দেখা যায়, গণধোলাই দেয়ার পর গ্রামবাসী মিলে সেই ছাত্রলীগ নেতার হাত-পা ধরে টেনে নিয়ে যাচ্ছে । ছাত্রলীগ নেতাকে গণধোলাই দেয়ার ঘটনায় ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে ।

জানা যায়, ২০১৯ সালের আগষ্ট মাসের দিকে রুহিয়া থানা এলাকায় নারী কেলেঙ্কারীর ঘটনায় গ্রামবাসী ছাত্রলীগ নেতা জুয়েল মাহমুদকে আটক করে। এরপর তাকে গ্রামবাসী মিলে গণধোলাই দিয়ে ছেড়ে দেয়। সম্প্রতি এই ঘটনার ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে ।

জানতে চাইলে ছাত্রলীগ নেতা জুয়েল মাহমুদ বলেন, গ্রামবাসী মারপিট করেছে বা ভিডিও -এ সম্পর্কে আমি কিছুই জানিনা । তাছাড়া ভিডিওতে যাকে দেখা যায় সেই ব্যক্তিও তো আমি না। এসময় পাল্টা প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, ভিডিওটিতে যাকে গণধোলাই দিচ্ছে তার সাথে কি আমার কোনো মিল রয়েছে?

এদিকে ছাত্রলীগ নেতা জুয়েল মাহমুদ রুহিয়া থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হিসেবে প্রচার-প্রচারণা করছেন বলেও জানা গেছে।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য ঠাকুরগাঁও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হিমুন সরকারের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, চলতি পথে যে কোনো ঘটনায় আমিও আমার পরিচয় দেওয়ার আগেই গণধোলাইয়ের শিকার হতে পারি, বা আপনিও পারেন-সেক্ষেত্রে করণীয় কিছুই থাকে না।আসলে ঘটনাটি কি নিয়ে সেই বিষয়টা আগে জানতে হবে।ইদানিং সাংবাদিক ভাইয়েরা ঘটনার বিস্তারিত না জেনেই সংগঠনের নাম ব্যবহার করে নিউজ করছে, যা মোটেও কাম্য নয়।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজহারুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ভিডিওটি আমি দেখেছি, ভিডিওতে যাকে হাত-পা ধরে নেয়া হচ্ছে সে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জুয়েল মাহমুদ । তবে বর্তমানে সে আমাদের সংগঠনের কোন পদে নেই, কেননা রুহিয়া থানা কমিটি এখনো ঘোষণা হয়নি। আশাকরি খুব শীঘ্রই কাউন্সিলের মাধ্যমে রুহিয়া থানা কমিটি ঘোষণা করা হবে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ একটি সুশৃঙ্খল সংগঠন । এখানে কোন খারাপ মানুষের ঠাঁই নেই এবং কোনদিনও হবে না ।

বিডি/ডেস্ক