ঠাকুরগাঁওয়ে ‘মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন সেবা ফাউন্ডেশনের’ যাত্রা শুরু

লেখক: নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: ৬ মাস আগে

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের যুবসমাজ ও চেয়ারম্যানের উদ্যোগে ‘মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন সেবা ফাউন্ডেশন’ নামে একটি অলাভজনক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের পথচলা শুরু হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ১১নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে প্রথমবারের মতো বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কর্মসূচির মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু করেন “মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন সেবা ফাউন্ডেশন”।

২২ জুলাই শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন প্রাঙ্গণে এই কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন করেন মোহাম্মদপুর ইউনিয়ান সেবা ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহ আলম সিদ্দিকী।

দ্বিতীয় পর্যায়ে বিকেল ৩টায় মাতৃগাঁও স্কুল মাঠে বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কর্মসূচি পালন করা হয়।

অনেকে রক্তের গ্রুপ না জানার কারণে রক্তদান করতে আগ্রহী হন না। তাই স্বেচ্ছায় রক্তদানকে উৎসাহিত করার জন্য সবাইকে বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ পরীক্ষা করা সহ স্বেচ্ছায় রক্তদান করার আহবান জানান এই সংগঠনটি।

সার্বিক সহযোগিতা ও সেচ্ছাসেবায় ছিলেন “বাঁধন” ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজ ইউনিট, রংপুর জোনের কর্মীরা।

রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করেন “বাঁধন” ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজ ইউনিটের অনুপম রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক বাঁধন রংপুর জোন।
এসময় মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন সেবা ফাউন্ডেশনের সকল সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ পরীক্ষা করতে শামীম হোসেন বলেন, ‘রক্তের গ্রুপ না জানা থাকার কারণে এত দিন রক্ত দান করতে পারিনি। আজকে রক্তের গ্রুপ জেনে নিলাম, এখন থেকে নিয়মিত রক্তদান করব।’

এছাড়া সুইটি আক্তার  নামের এক জন্য জানান, “আমি প্রথম আজকে জানলাম আমার রক্তের গ্রুপ এ+ (পজিটিভ)। তাও আবার বিনামূল্যে। আমার মতো অনেকেই আজকে রক্তের গ্রুপ নির্নয় করেছেন।”

আর্তের মুখে হাসি ফোটানো হয় যদি মানবতা, তবে তার শ্রেষ্ঠ সেবক হলো প্রতিটি রক্তদাতা; সুস্থ থাকলে করুন রক্তদান, হার্ট এ্যাটাকের ঝুঁকি কমান; মানবতার কল্যাণে এগিয়ে আসুন রক্তদানে- এমন সব সচেতনতা মূলক শ্লোগান মনে প্রাণে ধারণ করে সংগঠনটির স্বেচ্ছাসেবকগন বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ও জনগনকে রক্তদানে উদ্বুদ্ধ করতে সচেতনতা মূলক বক্তব্য দেন বাঁধনের সভাপতি মনিরুজ্জামান।

মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন সেবা ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা  ও ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান সোহাগ হোসেন বলেন, ‘যে রক্ত দিতে পারে তার আনুগত্য বা বিশ্বাস নিয়ে কোন প্রশ্ন করা যায় না। রক্তদান খুব কঠিনতম একটা কাজ। যে কখনও রক্তদান  করেনি সে এটা উপলব্ধি  করতে পারবে না। আমি এটা করেছি আমি বুঝি। তোমরা নিঃসন্দেহে একটা ভালো কাজ করছো। আর রক্তদানের মাধ্যমে মানুষের সাথে  ভালো সম্পর্ক তৈরি হয়। আর এই ভালো সম্পর্কটা তোমাদের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে কাজে লাগবে।’

বিডি/হাসান