ঠাকুরগাঁওয়ে রাস্তার গাছ কাটায় ইউএনওর পরামর্শে বনবিভাগের মামলা! 

লেখক: নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: ৭ মাস আগে

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার আকচা ইউনিয়নে অবৈধভাবে সরকারি গাছ কাটার ঘটনায় সাত জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেছে বনবিভাগ।বৃহস্পতিবার রাতে ঠাকুরগাঁও সদর থানায় সম্ভু বর্মণকে প্রধান করে সাতজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও চারজনকে আসামি করে মামলাটি করা হয়।
এর আগে আকচা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য নয়ন বর্মন বাদী হয়ে সদর থানায় একটি এজহার দাখিল করে। রাস্তার ধারের গাছগুলোর কতৃপক্ষ বনবিভাগ হওয়ায় সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের পরামর্শে পরে বনবিভাগের কর্মকর্তা শফিউল ইসলাম মণ্ডল বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।
শুক্রবার (১৫ জুলাই) সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আকচা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুব্রত কুমার বর্মন।
তিনি জানান, ১২ জুলাই মঙ্গলবার রাতে আকচা ইউনিয়নে বটতলী বাজার থেকে ফারাবাড়ি হাটের সড়কে বন বিভাগের রোপণ করা চারটি মূল্যবান আকাশমনি গাছ অবৈধভাবে কেটে নেন অভিযুক্তরা৷
পরে সেগুলো বিক্রির জন্য ট্রাক্টরে তোলেন তারা। বিষয়টি ইউপি সদস্যের মাধ্যমে জানতে পেরে ট্রাক্টরসহ গাছগুলো জব্দ করে পরিষদে নেওয়া হয় এবং ইউপি সদস্য নয়নকে বাদী করে সদর থানায় একটি এজহার দাখিল করা হয়। পরে বিষয়টি সদর ইউএনও স্যারকে জানালে তাঁর পরামর্শে বনবিভাগ আইনি ব্যবস্থা নেয়।তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় পুলিশ তদন্ত করছে।
মামলার বাদী শফিউল ইসলাম মণ্ডল বলেন, ‘গাছের ১১টি টুকরাসহ ট্রাক্টরটি সরকারের হেফাজতে রয়েছে। আদালতের নির্দেশ ছাড়া ট্রাক্টরটি ছাড়া হবে না।’
এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত প্রধান আসমী সম্ভু বর্মণের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনা অস্বীকার করে ফোনের লাইন কেটে দেন।  তিনি আর ফোন রিসিভ করেননি।
ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি (তদন্ত) আতিক হাসান বলেন, ‘সরকারি গাছ কাটার দায়ে জেলা বন বিভাগের পক্ষ থেকে মামলা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’
সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু তাহের মো. সামশুজ্জামান বলেন, সরকারি গাছ কেটে বিক্রি করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। বন বিভাগ আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আশা করি অপরাধীরা দ্রুত গ্রেফতার হবে।
বিডি/ডেস্ক