ঠাকুরগাঁওয়ে ২দিন ব্যাপী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন

লেখক: সুমনা সাথী, ঠাকুরগাঁও
প্রকাশ: ১ বছর আগে

কেউ তৈরি করেছে ‘ম্যানুয়েল রোবট’, আবার কেউবা মডেলের মাধ্যমে তুলে ধরেছে কলকারখানা ও রাস্তায় গাড়ির ধোঁয়াসহ বিভিন্ন কারণে পরিবেশ দূষণের চিত্র। বিজ্ঞান বিষয়ক এরকম কয়েকটি প্রকল্প নিয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে চলছে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ ও বিজ্ঞান মেলা। মেলায় বিজ্ঞান বিষয়ক বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে হাজির হয়েছে জেলার বিভিন্ন স্কুল, কলেজের শিক্ষার্থীরা। পৃষ্ঠপোষকতায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের তত্ত্বাবধানে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসনেরে আয়োজনে দুই দিনব্যাপী এ মেলা চলবে মঙ্গলবার (৩০ মে )পর্যন্ত।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, ‘৪৪ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ’ উপলক্ষে দুই দিনব্যাপী এ মেলার আয়োজন করা হয়েছে। ‘ইন্টারনেটে আসক্তির ক্ষতি’ শ্লোগানে মেলায় জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও উদ্ভাবকরা অংশ নিয়েছেন। যেখানে স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা নিজেদের উদ্ভাবিত সেবা নিয়ে হাজির হয়ে জেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে স্টল সাজিয়ে বসেছে।

মেলার পাশাপাশি প্রতিদিন বিতর্ক, কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন রয়েছে।

ক্ষুদে বিজ্ঞানীরা জানান, ‘ম্যানুয়েল রোবট’ এর কাজ হলো জিনিসপত্র এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় নিয়ে যাওয়া। মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে ব্লু টুথ দিয়েই একে নির্দেশ দেওয়া যায়। এর আগে সোমবার ফিতা কেটে, বেলুন ও ফেস্টুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মাহাবুবুর রহমান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন, জেলা শিক্ষা অফিসার খন্দকার মো:আলাউদ্দিন আল আজাদ সহ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রামকৃষ্ণ বর্মণ এর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রসাশক মাহাবুবুর রহমান, পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম, জেলা শিক্ষা অফিসার খন্দকার মো:আলাউদ্দিন আল আজাদসহ স্কুলের দুই শিক্ষার্থী।

আরও পড়ুন : রাণীশংকৈলে ইউপি চেয়ারম্যানের প্রত্যয়নে জুলেখা বেঁচে থেকেও মৃত!

জেলা প্রশাসক মাহাবুবুর রহমান বলেন, আমাদের সারাদিনে একটি সময় বের করে মোবাইল ও ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হবে, ইন্টারনেট থেকে ভালো কিছু শিখতে হবে। বিভিন্ন কারণে বিজ্ঞান ও গণিত শিক্ষায় ছাত্ররা আগ্রহ হারাচ্ছে। এখন থেকে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে বিজ্ঞানমনস্ক করে গড়ে তুলতে পারলে, তারা একদিন খ্যাতনামা বিজ্ঞানী হয়ে দেশের উন্নয়নে এগিয়ে আসবে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ফেসবুক ও ইউটিউবে এখন অনেক প্রযুক্তিগত কিছু শিখার আছে, কিন্তু তোমাদের নিজে থেকে একদম ভিন্নধর্মী কিছু বানাতে বা আবিস্কার করতে হবে ।

সভাপতির বক্তব্যে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রামকৃষ্ণ বর্মণ বলেন শিক্ষাক্ষেত্রে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে। সেজন্য আমরা স্কুল পর্যায়ে এ মেলার আয়োজন করেছি। এ সকল মেলার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা উদ্ভাবন বিষয়ে আগ্রহী হয়ে উঠবে। তাদের মাঝে প্রযুক্তির প্রসার ঘটবে।

ডেস্ক/বিডি/সুমনা

  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  • বিজ্ঞান মেলা
  •    

    কপি করলে খবর আছে