তীব্র তাপদাহে দিনাজপুরে লিচুর ফলন বিপর্যয়ের আশংকা

লেখক: শাহ্ আলম শাহী, দিনাজপুর থেকে
প্রকাশ: ১ বছর আগে

টানা কয়েকদিনের প্রচণ্ড দাবদাহে দিনাজপুরে লিচুর ফলন বিপর্যয়ের আশংকা দেখা দিয়েছে। এ কারণে পরিপক্কের আগেই গাছে লিচু পাকা শুরু হয়েছে। কোথাও কোথাও গাছে ফেটে গেছে যাচ্ছে লিচু। আবার কোথাও লিচু শুকিয়ে ঝরে পড়ছে। দিনাজপুরের বাজারগুলোতে মৌসুমের প্রথম লিচু আসে ১৫ মের পর। সে হিসেবে দানা বড় এবং পরিপক্ব হতে আরও এক সপ্তাহ প্রয়োজন। কিন্তু প্রচণ্ড দাবদাহে আগাম পাকতে শুরু করেছে লিচু। এতে লিচুতে স্বাদ কমবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। ফলে লিচুর দাম নিয়েও এবার শংকায় চাষী-বাগানি ও ব্যবসায়ীরা। গত কয়েকদিন ধরে দিনাজপুরের উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে প্রচন্ড তাপপ্রবাহ। তাপমাত্রা ৩৫ থেকে ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ওঠানামা করছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে তাপদাহের তীব্রতা।

দিনাজপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্ততের উপপরিচালক মো.নুরুজ্জামান জানিয়েছেন, এসময় লিচু রক্ষার জন্য গাছের গোড়ার পর্যাপ্ত পানি দেয়ার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। কারণ মৌসুমের প্রথম মাদ্রাজি জাতের লিচু বাজারে আসে ১৫ মে’র পর। এরপর জুনের প্রথম সপ্তাহে বেদানা, ১৫ জুনের পর বাজারে আসে বোম্বাই লিচু। এরপর চায়না-১, ২ ও ৩ জাতের এবং সবশেষ আসে কাঁঠালি ও মোজাফ্ফরি জাতের লিচু। কিন্তু চলতি সপ্তাহেই মাদ্রাজি লিচু বাজারে আসতে শুরু করেছে। কিন্তু, স্বাদ নেই লিচুতে, দানাও ছোট এবং বিচি বেশি বড়।

এভাবে তাপদাহ অব্যাহত থাকলে অধিকাংশ লিচু নষ্ট হয়ে যাবে। এমনটাই মনে করছেন,সংশ্লিষ্টরা।জেলায় এবার পাঁচ হাজার ৪৯০ হেক্টর জমিতে লিচুর বাগান রয়েছে। এ বাগানগুলোতে লিচু উৎপাদন হয় প্রায় ৪৫ হাজার মেট্রিক টন। তবে আবহাওয়া বিরূপ হওয়ায় এবার উৎপাদনে কিছুটা প্রভাব পড়তে পারে।

দিনাজপুর কসবা এলাকায় লিচু বাগানি আরমান হোসেন জানান, মাদ্রাজি লিচু একটু আগেই বাজারে আসে, কিন্তু এবার গরমে বেশি আগেই লিচু পাকতে শুরু করেছে। সেই সাথে বেদানাও পাকছে। আকারে এখনো ছোট আছে লিচু।পরিপক্ক না হতেই অসময়ে পাকছে লিচু। বৃষ্টি দেরিতে হওয়ায় দানাও ছোট হয়েছে। সামান্য শিলাবৃষ্টিতে লিচুর অনেক ক্ষতি হয়েছে। শিলায় আঘাত পাওয়া লিচু ফেটে পচে যাচ্ছে। জানি না এবার লাভ হবে কি না।

মাসিমপুর এলাকার লিচু চাষি মোকাররম হোসেন জানালেন, গরম আর রোদে লিচুর সবুজ চামড়া পুড়ে লাল এবং খয়রি বর্ণ ধারণ করেছে। একারণে এবার আগেই লিচু পাড়তে হবে। অপরিপক্ব লিচু পেকে যাওয়ায় মিষ্টিও কম এবং স্বাদও নেই। লিচুর দানা বড় করার জন্য কৃষি বিভাগের পরামর্শ নিয়ে প্রতিদিন গাছের গোড়ায় সেচ দেওয়া হচ্ছে। ভিটামিন জাতীয় ওষুধ স্প্রে করছি। কিন্তু, এতে কাজ হচ্ছেনা।

আরও পড়ুন : ছাত্রদলের নেতা ও বিএনপি-জামাত পন্থিদের নিয়ে কৃষকলীগের কমিটি গঠনের অভিযোগ!

দিনাজপুর সরকারি কলেজের অধ্যাপক উদ্ভিদবিদ দেলোয়ার হোসেন জানিয়েছেন, অব্যাহত তাপপ্রবাহ ও উচ্চ তাপমাত্রার কারণে লিচুতে দ্রুত রং আসতে শুরু করেছে। অতিরিক্ত তাপমাত্রার কারণে অন্য বছরের চেয়ে এবার লিচুতে দ্রুত রং এসেছে। বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে উদ্ভিদ বায়োক্লকে পরিবর্তন আসছে। আগামীতে এ ধরনের পরিবর্তন আরও স্পষ্ট হতে পারে। যা বাগানিদের জন্য খুবই ক্ষতিকারক।

দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডা. মো. এ এইচ এম বোরহান-উল-ইসলাম সিদ্দিকী বলেন, ভোক্তাদের অপরিপক্ক লিচু খাওয়া থেকে বিরত থাকতে বলা হচ্ছে। এসময় বাগানিরা লিচুর রং এবং আকার ঠিক রাখার জন্য গাছেই লিচুতে কীটনাশক প্রয়োগ করে থাকে। অধিক লাভের আশায় তা বাজারে বিক্রি করে। অপরিপক্ক লিচু খেলে মানুষের নানান ধরনের সমস্যার আশংকা রয়েছে। অপরিপক্ক লিচু সবচেয়ে বেশি ক্ষতিকারক শিশুদের জন্য। এমনকি এ লিচু খেলে শিশুর মৃত্যুও ঘটতে পারে।

দিনাজপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো.নুরুজ্জামান জানান,গত বছর জেলায় লিচুর চাষ হয়েছিল পাঁচ হাজার ৪৮০ হেক্টর জমিতে। এবার ১০ হেক্টর বেড়েছে। গতবার ৬১৬ কোটি টাকার লিচু বিক্রি হলেও এবার ৭০০ কোটি ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে আবহাওয়া বিরূপ হওয়ায় এবার উৎপাদনে কিছুটা প্রভাব পড়তে পারে। দিনাজপুরে লিচু ভাঙার সময় এখনও আসেনি। কোনো অসাধু ব্যবসায়ী অপরিপক্ক লিচু বিক্রি করলে প্রয়োজনে অভিযান পরিচালনা করা হবে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর দিনাজপুরের সহকারী পরিচালক মমতাজ বেগম জানান, দিনাজপুরের লিচু নিয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে মিটিং হয়েছে। ক্যামিকেল বা রং ব্যবহারের মাধ্যমে আকর্ষণীয় করে অপরিপক্ক লিচু বাজারে বিক্রি করতে দেয়া হবেনা বলেও মিটিংয়ে লিচু নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

দিনাজপুর নিরাপদ খাদ্য অধিদপ্তরের অফিসার মো. মুসফিকুর রহমান জানিয়েছেন, আমরা বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীদের সচেতন করতে প্রচারণা শুরু করেছি। অপরিপক্ক লিচু খেলে তেমন সমস্যা নেই, কিন্তু যদি ক্যামিকেল বা রং ব্যবহার করে লিচু আকর্ষণীয় করে বাজারে বিক্রি করা হয় এবং সেই লিচু মানুষ খায় তাহলেই সমস্যা। এ বিষয়ে কৃষি কর্মকর্তার সঙ্গে সমন্বয় করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে।

‘চাল-লিচুতে ভরপুর, জেলার নাম দিনাজপুর’ জেলা ব্র্যান্ডিং এর শ্লোগান এটি। লিচুর রাজ্য হিসেবে সুনামও ছড়িয়েছে দিনাজপুরের। ১৩টি উপজেলাতেই কম বেশি লিচুর আবাদ হয়। সবচেয়ে বেশি চাষ হয় সদর উপজেলার মাসিমপুর, উলিপুর, আউলিয়াপুর, মহব্বতপুর, বিরলের মাধববাটি, রবিপুর, রাজারামপুর, মহেশপুর, বটহাট এবং চিরিরবন্দর-খানসামা উপজেলায়। মূলত লিচু চাষের জন্য উপযোগী এ অঞ্চলে লিচু চাষে কৃষকের আগ্রহও দিন দিন বাড়ছে।

ডেস্ক/বিডি

  • তীব্র তাপদাহ
  • দিনাজপুর
  • লিচু
  •    

    কপি করলে খবর আছে