পীরগঞ্জে শিশুকে হাত-পা বেঁধে পাষবিক নির্যাতন; পিতা ও সৎ মা গ্রেপ্তার!

লেখক: পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাও) প্রতিনিধি
প্রকাশ: ১ বছর আগে

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে ১২ বছর বয়সী ছেলেকে গোয়াল ঘরের ভিতরে বাঁশের খুটিতে হাত-পা বেঁধে চার দিন ধরে মাটিতে ফেলে রেখে নির্যাতন করার অভিযোগে পিতা এবং সৎ মা’কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল রবিবার (১৬ এপ্রিল) সকালে পীরগঞ্জ থানা পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করা হয়েছে।

জানা যায়, উপজেলার সেনগাঁও ইউনিয়নের সিন্দুর্না গ্রামের আব্দুল খালেক পেশায় একজন রাজ মিস্ত্রি। বিয়ে করেন সাহেরা খাতুনকে। তাদের সংসারকালে এক কন্যা ও এক পুত্র সন্তান জন্মলাভ করে। কন্যা লাবনি আক্তার বিয়ের পর মারা যান। পুত্র সাহাবুদ্দিনকে রেখে প্রায় ৮ বছর আগে মারা যান সাহেরা খাতুন। এদিকে সাহেরার সাথে সংসার করা কালে আমিনা নামে আরো একজনকে বিয়ে করেন আব্দুল খালেক। তার গর্ভেও এক কন্যা ও এক পুত্র সন্তান জন্ম হয়।

মায়ের মৃত্যুর পর থেকেই সাহাবুদ্দিন তার পিতা খালেক এবং সৎ মা আমিনার সংসারে নানা বঞ্চনার মধ্য দিয়ে বড় হতে থাকে।

স্থানীয়রা জানায়, সাহাবুদ্দিনকে তার পিতা খালেক এবং সৎ মা আমিনা বেগম কারণে অকারণে প্রায়ই মারপিট করত। ঠিক মত খাবার দিত না। অমানবিক নির্যাতন করত। খেয়ে না খেয়ে দিন পার করতে হয় সাহাবুদ্দিনকে।

কয়েকদিন ধরে সাহাবুদ্দিনের কোন খোঁজ খবর না পেয়ে তার মামতো ভাই আনোয়ার হোসেন গত শনিবার তার খোঁজে ফুফা আব্দুল খালেকের বাড়িতে যান। বাড়িতে গিয়ে দেখতে পান, গোয়াল ঘরের ভিতরে একটি বাঁশের খুটির সাথে হাত-পা বেঁধে সাহাবুদ্দিনকে মাটিতে ফেলে রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন : প্রতিবাদ দিয়ে সত্যকে আঁড়াল করতে চান ঠাকুরগাঁওয়ের ঢোলারহাট ইউপি সদস্য আ: রশিদ

পরে আশে-পাশের লোকজনের সহায়তায় সাহাবুদ্দিনকে ঐ অবস্থা থেকে উদ্ধার করেন আনোয়ার। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এনে চিকিৎসা করান এবং থানায় এজাহার দায়ের করেন।

আনোয়ার হোসেন জানান, সাহাবুদ্দিন তাকে জানিয়েছেন, চার দিন ধরে তাকে খুঁটির সাথে ঐ অবস্থায় হাত-পা বেঁধে মাটিতে ফেলে রাখা হয়। এসময় তাকে খেতে দেওয়া হয়নি। ক্ষুধার জ্বালায় মাটি খেয়েছে সাহাবুদ্দিন। হাত-পা বাঁধা অবস্থায় পড়নের কাপড়েই প্রসাব-পায়খানাও করেছে নির্যাতিত ঐ কিশোর। এ ঘটনায় একটি ভিডিও ক্লিপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এতে তৎপর হয়ে উঠেন পুলিশ প্রশাসন। তারা বিষয়টির খোঁজ খবর নেন এবং জরুরী ভাবে পদক্ষেপ নেন।

অভিযান চালিয়ে রবিবার ভোর রাতে ঐ কিশোরে পিতা আব্দুল খালেক ও সৎ মা আমিনাকে গ্রেপ্তার করেন।

পীরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। খবর পাওয়ার সাথে সাথেই তারা শিশুটির পিতা এবং সৎ মাকে গ্রেপ্তার করেছেন। আদালতের মাধ্যমে তাদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

ডেস্ক/বিডি/প্রতি

  • হাত-পা বেঁধে পাষবিক নির্যাতন; পিতা ও সৎ মা গ্রেপ্তার!
  •    

    কপি করলে খবর আছে